নওগাঁয় পুলিশ-বিএনপি সংঘর্ষের ঘটনায় দুটি মামলায় জেলা বিএনপির যুগ্ম আহবায়ক এ্যাডঃ রফিকুল আলমের জামিন

নওগাঁয় পুলিশ-বিএনপি সংঘর্ষের ঘটনায় দুটি মামলায় জেলা বিএনপির যুগ্ম আহবায়ক এ্যাডঃ রফিকুল আলমের জামিন


স্টাফ রিপোর্টার ঃ  নওগাঁ সরকারি কাজে বাধাদান পুলিশকে মারপিট ও জানমালের নিরাপত্তা বিঘিœত করায় নওগাঁয় বিএনপির নেতকর্মীদের বিরুদ্ধে পৃথক দুইটি মামলায় জেলা বিএনপির যুগ্ম আহবায়ক এ্যাডঃ রফিকুল আলমসহ ১৭ জনের জেলা ও দায়রা জজ আদালতের বিচারকের কাছে জামিন চান আসামী পক্ষের আইনজীবিরা। আজ মঙ্গলবার দুপুরে জেলা ও দায়রা জজ আদালতের বিচারক একেএম শহীদুল আলম আসামী ও রাষ্ট্র পক্ষের শুনানী অন্তে শুধুমাত্র এ্যাডঃ রফিকুল আলমকে এ জামিন আদেশ দেন। বাকীদের জামিন না মঞ্জুর করেন। জামিনের কাগজ জেলখানায় পৌছলে বিকেলে জেলখানা থেকে মুক্তিপায়। নওগাঁর জেলার শরীফুল ইসলাম এ বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।
নওগাঁ সদর মডেল থানার উপ-পরিদর্শক (এসআই) আব্দুল মান্নান বাদী হয়ে ৩০ মার্চ রাতে পৌর মেয়র আলহাজ্ব নাজমুল হক সনি, জেলা বিএনপির যুগ্ম আহবায়ক এ্যাডঃ রফিকুল আলমসহ ১১৪ জন আসামী করে এই দুটি মামলা দায়ের করেন। এ ঘটনায় ওই দিন ১৪ জনকে এবং পরে আরও ৩ জনকে মোট ১৭ জনকে আটক করা হয়েছে। এদের মধ্যে শুধুমাত্র আদালত এ্যাডঃ রফিকুল আলমকে জামিন দিয়েছে।
উল্লেখ্য, স্বাধীনতার সূবর্ণজয়ন্তীর অনুষ্ঠানে ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির আগমনকে ঘিরে ঢাকা, চট্টগ্রাম ও ব্রাহ্মণবাড়িয়াসহ বিভিন্ন জেলায় ব্যাপক তান্ডব চালায় হেফাজতে ইসলাম সমর্থকরা। আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর সঙ্গে সংঘর্ষে চট্টগ্রামে চারজন ও ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় অন্তত সাতজন নিহত হয়। এই ঘটনার পরিপ্রেক্ষিতে কেন্দ্রীয় কর্মসূচির অংশ হিসেবে গত ৩০ মার্চ মঙ্গলবার দুপুর সাড়ে ১২টার দিকে জেলা বিএনপি কার্যালয় কেডির মোড়ের সামনে বিএনপির বিােভ মিছিলের বের করার চেষ্ঠা করে। এসময় বিএনপি নেতাকর্মীদের সঙ্গে পুলিশের সংঘর্ষ হয়। এতে পুলিশ সদস্যসহ বিএনপির অর্ধশতাধিক নেতাকর্মী আহত হয়েছে।#