Friday , 14 December 2018

এইমাত্র পাওয়া খবর
Home » নওগাঁ জেলার খবর » নওগাঁয় এক ছাত্রী গৃহবধু স্বামী, সতিন ও সতিনের ভাইয়ের অমানষিক নির্যাতনের শিকারঃ হাসাপাতালে চিকিৎসাধীন

নওগাঁয় এক ছাত্রী গৃহবধু স্বামী, সতিন ও সতিনের ভাইয়ের অমানষিক নির্যাতনের শিকারঃ হাসাপাতালে চিকিৎসাধীন

স্বামীর দ্বিতীয় বিয়ের জন্য মামলা করায়

September 23, 2018 12:23 pm by: Category: নওগাঁ জেলার খবর Leave a comment A+ / A-

নওগাঁ জেলা সংবাদদাতা ঃ নওগাঁয় স্বামী, শ্বাশুড়ী, সতিন আর সতিনের ভাইয়ের অমানুনিষ নির্যাতনে মারাত্মক আহত অবস্থায় এমেলী ইয়াসমিন (২৫) নামের এক গৃহবধু এবং একই সাথে ছাত্রী নওগাঁ সদর হাসপাতালে চিকিৎসাধীন রয়েছে। স্বামী দ্বিতীয় বিয়ে করায় তার বিরুদ্ধে মামলা করার কারনে আপোষ করার নামে বাড়িতে ডেকে নিয়ে গিয়ে নির্যাতন এবং এক পর্যায়ে হত্যার প্রচেষ্টা চালানো হয়। এক ইউপি মহিলা সদস্যের সহযোগিতায় রানীনগর থানার পুলিশ তাকে উদ্ধার করে নওগাঁ সদর হাসপাতালে ভর্তি করিয়ে দেন।
হাসপাতালের বিছানায় কান্না জড়িত কন্ঠে এমেলী যে বিবরন দিয়েছে তা লোমহর্ষক। সরকারী একজন চাকুরীজীবি স্বামীর পক্ষে অতি অমানবিক। এমেলী বর্তমানে নওগাঁ সরকারী কলেজের ডিগ্রি ফাইনাল বর্ষের ছাত্রী এবং বদলগাািছ উপজেলার তেঘরিয়া গ্রামের এমদাদুল হকের কন্যা। গত ২০১৬ সালের ২ জানুয়ারী রানীনগর উপজেলার চকাদিন গ্রামের আজাহার আলীর পুত্র এরশাদ হোসেনের সাথে তার বিয়ে হয়। এরশাদ গোপনে মাষ্টার্স পাশ এবং গাজিপুর ধান গবেষনা ইনষ্টিটিউটের লাইব্রেরী এটেনডেন্স হিসেবে কর্মরত।
বিয়ের পর থেকে যৌতুকের দাবী উত্থাপিত হয়। এর জের ধরে নেমে আসে অমানবিক নির্যাতন। সংসার করার মানষিকতায় সকল নির্যাতন সহ্য করে স্বামীর বাড়িতেই থাকে। কিন্তু এক পর্যায়ে একই অর্থাৎ বছর ২৩/৮/২০১৬ তারিখে এরশাদ হোসেন রানীনগর উপজেলার বিল পালশা গ্রামের আমিনুল ইসলামের কন্যা তানজিলা বেগম স্বর্নকে বিয়ে করে। এরই প্রেক্ষিতে স্ত্রীর অমতে বেআইনী ভাবে দ্বিতীয় বিয়ে করার কারনে নারী ও শিশু নির্যাতন আইনে এমেলী স্বামীর বিরুদ্ধে মামলা দায়ের করেন্।
এরপর থেকে তাােক মামলা তুলে নেয়ার চাপ দিয়ে আসছিল। অবশেষে তারা কৌশলের আশ্রয় নেয়। গত ১৬ সেপ্টেম্বর’১৮ তারিখে আপোষের করার নামে আদালত থেকে জামিন গ্রহন করে। জামিন নেয়ার পর ১৮ সেপ্টেম্বর একটি যুক্তিপূর্ন আপোষ করার নামে স্বামী এরশাদ এমেলীকে তার বাড়িতে ডেকে পাঠায়। ১৯ সেপ্টেম্বর নওগাঁ সদর উপজেলার চুন্ডিপুর ইউনিয়ন পরিষদের মহিলা সদস্য বিউটি আকত্রাকে সাথে নিয়ে শ্বশুর বাড়ি চকাদিন গ্রামে যান। সেখানে গেলে তাদের একটি ঘরে আটক করে রাখে। অমানষিক ভাবে মারপিট করে। এমনকি ওই মহিলা সদস্যও মারপিট থেকে রেহাই পাননি। এক পর্যায়ে তারা বাড়ি থেকে পালিয়ে বের হয়ে আসে। তখন এরশাদ, এরশাদের দ্বিতীয় স্ত্রী, দ্বিতীয় স্ত্রীর ভাই রিক্সা থেকে এমেলীকে জোরপুর্বক বাড়িতে নিয়ে যায় এবং সবাই দিলে মারধর করতে থাকে। এক পর্যায়ে হত্যার চেষ্টা চালায়। এদিকে মহিলা সদস্য বিউটি আকতার রানীনগর থানায় সংবাদ দেন। পুলিশ এসে উক্ত এমেলীকে মারাত্মক আহত অবস্থায় উদ্ধার করে এবং মহিলা মেম্বারের মাধ্যমে নওগাঁ সদর হাসপাতালে ভর্তি করিয়ে দেন। এমেলী সুস্থ হলে রানীনগর থানায় একটি মামলা করবেন বলে জানিয়েছেন।#

নওগাঁয় এক ছাত্রী গৃহবধু স্বামী, সতিন ও সতিনের ভাইয়ের অমানষিক নির্যাতনের শিকারঃ হাসাপাতালে চিকিৎসাধীন Reviewed by on . নওগাঁ জেলা সংবাদদাতা ঃ নওগাঁয় স্বামী, শ্বাশুড়ী, সতিন আর সতিনের ভাইয়ের অমানুনিষ নির্যাতনে মারাত্মক আহত অবস্থায় এমেলী ইয়াসমিন (২৫) নামের এক গৃহবধু এবং একই সাথে ছা নওগাঁ জেলা সংবাদদাতা ঃ নওগাঁয় স্বামী, শ্বাশুড়ী, সতিন আর সতিনের ভাইয়ের অমানুনিষ নির্যাতনে মারাত্মক আহত অবস্থায় এমেলী ইয়াসমিন (২৫) নামের এক গৃহবধু এবং একই সাথে ছা Rating: 0

Leave a Comment

scroll to top