মান্দায় গৃহবধূর রহস্যজনক মৃত্যুতে প্রশ্ন ॥ স্বামী জেলহাজতে

মান্দায় গৃহবধূর রহস্যজনক  মৃত্যুতে প্রশ্ন ॥ স্বামী  জেলহাজতে

মান্দা (নওগাঁ) প্রতিনিধিঃ
নওগাঁর মান্দায় জলি খাতুন (৩০) নামে ও দুই সন্তানের জননী এক গৃৃহবধূর রহস্যজনক মৃত্যুতে নানা প্রশ্ন দেখা দিয়েছে। স্বামীর পরিবারের দাবি, পারিবারিক বিরোধের জের ধরে সিড়িঘরে গলায় ওড়না পেঁচিয়ে আত্মহত্যা করেছে জলি। তবে নিহতের স্বজনদের অভিযোগ, যৌতুকের দাবিতে নির্যাতন চালিয়ে হত্যার পর তার লাশ ঝুলিয়ে রাখা হয়েছে। পরে আত্মহত্যা বলে প্রচার চালানো হয়েছে। চাঞ্চল্যকর এ ঘটনাটি ঘটেছে সোমবার রাতে উপজেলার কশব ইউনিয়নের মিঠাপুর গ্রামে। জলি খাতুন ওই গ্রামের আবুল হোসেনের স্ত্রী।
 পুলিশ ঘটনাস্থল থেকে তার লাশ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য নওগাঁ মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতাল মর্গে পাঠিয়েছে। এ ঘটনায় জলির স্বামী আবুল হোসেনকে আটক করা হয়েছে।

নিহত জলির স্বজনরা জানান, প্রায় ১১ বছর আগে জেলার আত্রাই উপজেলার মদনডাঙ্গা গ্রামের জালাল উদ্দিনের মেয়ে জলির সাথে মিঠাপুর গ্রামের বাহার আলীর ছেলে আবুল হোসেনের বিয়ে হয়। বিয়ের পর জামাই আবুল হোসেন দীর্ঘদিন প্রবাসে ছিলেন। বিদেশ থেকে ফিরে আসার পর জামাই আবুল হোসেনসহ পরিবারের লোকজন মেয়ে জলির নিকট থেকে মোটা অংকের যৌতুক দাবি করে নির্যাতন শুরু করে।

নিহতের বাবা জালাল উদ্দিন অভিযোগ করে বলেন, একই দাবিতে গত এক সপ্তাহ ধরে মেয়ে জলিকে নির্যাতন করে আসছিল জামাইসহ পরিবারের লোকজন। ঘটনার দিন মেয়েকে আবারো নির্যাতন চালিয়ে তাকে হত্যার পর আত্মহত্যা বলে চালানোর অপচেষ্টা করা হচ্ছে। মেয়ের শরীরে নির্যাতনের একাধিক চিহ্ন রয়েছে উল্লেখ করে তিনি বলেন, এ ঘটনায় জামাই আবুল হোসেনসহ ৬ জনের বিরুদ্ধে মান্দা থানায় মামলা দায়ের করা হয়েছে।

মান্দা থানার পরিদর্শক (তদন্ত) তারেকুর রহমান সরকার বলেন, ঘটনায় গৃৃহবধূর পিতা বাদি হয়ে থানায় মামলা দায়ের করেছেন। মামলায় নিহতের স্বামী আবুল হোসেনকে আটক করে জেলহাজতে পাঠানো হয়েছে।